তাজা খবর
এডিস মশার উৎসস্থল ধ্বংসে সারাবছর কর্মসূচি নিতে হবে: নাসিম

এডিস মশার উৎসস্থল ধ্বংসে সারাবছর কর্মসূচি নিতে হবে: নাসিম

নিউজ ডেস্ক: ডেঙ্গু প্রতিরোধে এডিস মশার উৎসস্থল ধ্বংসে বছরব্যাপী কর্মসূচি নিতে হবে বলে জানিয়েছেন কেন্দ্রীয় ১৪ দলের মুখপাত্র এবং স্বাস্থ্য ও পরিবার কল্যাণ মন্ত্রণালয়ের সাবেক মন্ত্রী মোহাম্মদ নাসিম।

তিনি বলেন, ডেঙ্গু থেকে রক্ষা পেতে মশা নিধনের বিকল্প নাই। নাগরিকদেরও দায়বদ্ধতা রয়েছে। সবাইকে সচেতন হতে হবে, সতর্ক থাকতে হবে।

শুক্রবার সকালে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের (বিএসএমএমইউ) কেবিন ব্লকের নিচতলায় ডেঙ্গু চিকিৎসাসেবা সেল পরির্দশন শেষে সাংবাদিকদের তিনি একথা বলেন।

নাসিম বলেন, ডেঙ্গু বর্তমানে আতঙ্ক সৃষ্টি করেছে। তবে দেশের হাসপাতালগুলোর চিকিৎসক-নার্সরা, মেডিকেল টেকনোলজিস্ট, ল্যাব টেকনিশিয়ানরাসহ সংশ্লিষ্টরা রাতদিন সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। সাপ্তাহিক ছুটির দিনও তারা সেবা দিয়ে যাচ্ছেন। বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ডেঙ্গু রোগীদের সর্বোচ্চ সেবা দেওয়া হচ্ছে।

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে বিএসএমএমইউ’র উপাচার্য অধ্যাপক ডা. কনক কান্তি বড়ুয়া বলেন, জ্বর হলেই যথাসময়ে হাসপাতালে এসে চিকিৎসকের পরামর্শ নিন। দেরি করে আসলে রোগীর স্বাস্থ্যঝুঁকি বেড়ে যায়। যারা জ্বরে আক্রান্ত হয়েছেন পরীক্ষা না করিয়ে বাড়ি যাবেন না। পরীক্ষায় ডেঙ্গু ভাইরাস ধরা পড়লে বাড়ি যাবেন না।

তিনি জানান, পবিত্র ঈদুল আযহার ঈদের ছুটিতেও বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ে ডেঙ্গু রোগীদের চিকিৎসাসেবা চলবে। ইতোমধ্যে সে প্রস্তুতি নেওয়া হয়েছে। শুধু তাই নয়, সাধারণ রোগীদের সুবিধার্থে ঈদের পর দিন বিশ্ববিদ্যালয়ের বহির্বিভাগ খোলা রাখা হয়েছে। বুধবার প্রচলিত নিয়মে হাসপাতাল খোলা থাকবে।

তিনি আরো বলেন, প্রত্যেক বছরের মতো এবারও বঙ্গবন্ধুর শাহাদাৎ বার্ষিকীতে আগামী ১৫ আগস্ট সকাল ৯টা থেকে বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের বহির্বিভাগে বিনামূল্যে রোগী দেখা হবে।

এসময় আরো উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশের সাম্যবাদী দলের সাধারণ সম্পাদক এবং সাবেক শিল্পমন্ত্রী দিলীপ বড়ুয়া, বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিব মেডিকেল বিশ্ববিদ্যালয়ের উপ-উপাচার্য (গবেষণা ও উন্নয়ন) অধ্যাপক ডা. মো. শহীদুল্লাহ সিকদার, উপ-উপাচার্য (প্রশাসন) অধ্যাপক ডা. মুহাম্মদ রফিকুল আলম, সার্জারি অনুষদের ডিন অধ্যাপক ডা. মো. জুলফিকার রহমান খান, রেজিস্ট্রার অধ্যাপক ডা. এ বি এম আব্দুল হান্নান, প্রক্টর অধ্যাপক ডা. সৈয়দ মোজাফফর আহমেদ, পরিচালক (হাসপাতাল) ব্রিগেডিয়ার জেনারেল এ কে মাহাবুবুল হক, হেমাটোলজি বিভাগের চেয়ারম্যান অধ্যাপক ডা. মো. আব্দুল আজিজ, চিফ এস্টেট অফিসার ডা. এ কে এম শরীফুল ইসলাম, অতিরিক্ত পরিচালক (হাসপাতাল) অধ্যাপক ডা. নাজমুল করিম মানিক প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*