তাজা খবর
আগামী তিন বছরে বাংলাদেশকে ৫০০ কোটি ডলার দেবে এডিবি

আগামী তিন বছরে বাংলাদেশকে ৫০০ কোটি ডলার দেবে এডিবি

দ্রুত, অন্তর্ভুক্তিমূলক ও টেকসই প্রবৃদ্ধির জন্য ২০২০-২০২২ অর্থবছরে বাংলাদেশকে ৫০০ কোটি ডলার সহায়তা দেবে এশীয় উন্নয়ন ব্যাংক (এডিবি)। বুধবার জাতীয় সংসদে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সঙ্গে সাক্ষাৎকালে এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর মনমোহন প্রকাশ এ তথ্য জানান বলে সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়েছে।

শুক্রবারের সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, সাক্ষাতকালে এডিবির কান্ট্রি ডিরেক্টর মনমোহন প্রকাশ প্রধানমন্ত্রীর কাছে ২০২০-২০২২ সালের জন্য এডিবির নতুন কান্ট্রি অপারেশন্স বিজনেস প্ল্যান (সিওবিপি) হস্তান্তর করেন। এতে ফার্ম প্রকল্পের জন্য প্রায় পাঁচ বিলিয়ন ডলারের বিভিন্ন কর্মসূচির কথা বলা হয়েছে।

পাইপলাইনে আরও ৪ দশমিক ৯ বিলিয়ন ডলারের প্রজেক্ট স্ট্যান্ডবাই হিসেবে রয়েছে বলেও বিজ্ঞপ্তিতে উল্লেখ করা হয়।

বিজ্ঞপ্তিতে বলা হয়, এডিবির এই ৫০০ কোটি ডলারের কান্ট্রি অপারেশন বিজনেস প্ল্যান (সিওবিপি) সরকারের সপ্তম পঞ্চবার্ষিকী পরিকল্পনা এবং এডিবির স্ট্র্যাটেজি-২০৩০ বাস্তবায়নে সহায়তা করবে। এছাড়া টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রার লক্ষ্যগুলো পূরণেও এটি ভূমিকা রাখবে। সরকারের নতুন ইশতেহারে দেওয়া প্রতিশ্রুতিগুলো বাস্তবায়নেও এটি সহায়তা করবে।

বিজ্ঞপ্তিতে আরও বলা হয়, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এডিবির সহায়তার প্রশংসা করেন এবং তার সরকারের বিভিন্ন উন্নয়ন কর্মকাণ্ডের দিক তুলে ধরেন। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার পরিকল্পিত উন্নয়ন উদ্যোগের ভূয়সী প্রশংসা করে কান্ট্রি ডিরেক্টর মনমোহন প্রকাশ বলেন, নতুন ৫০০ কোটি ডলারের প্রজেক্ট সরকারের ধারাবাহিক উন্নয়নকে ত্বরাণ্বিত করবে। বাংলাদেশের উন্নয়নে এডিবির সহায়তা অব্যাহত থাকবে বলেও জোরালোভাবে ব্যক্ত করেন তিনি।

কান্ট্রি অপারেশন বিজনেস প্ল্যানে প্রধান প্রকল্পগুলোর মধ্যে রয়েছে ঢাকা-সিলেট রোড, জয়দেবপুর-এলেঙ্গা-রংপুর-বুড়িমারী-বাংলাবান্ধা সড়ক, ফরিদপুর-বরিশাল সড়ক, ঢাকা-চট্টগ্রাম ডুয়েল গেজ রেল লাইন, চট্টগ্রাম-কক্সবাজার রেললাইন, ঢাকা এমআরটি লাইন-৫ (গাবতলী-পান্থপথ-আফতাবনগর), কর্মসংস্থান প্রকল্প, কম্পিউটার এবং সফটওয়্যার ইঞ্জিনিয়ারিং টেরিটরি শিক্ষা প্রকল্প, ঢাকার নর্দমা ব্যবস্থা ও পানি সরবরাহ প্রকল্প এবং খুলনার নর্দমা ব্যবস্থার উন্নয়ন প্রকল্প।

উল্লেখ্য, ৪৬ বছর ধরে এডিবি বাংলাদেশের সঙ্গে কাজ করছে। বাংলাদেশের উন্নয়নে সংস্থাটি এ পর্যন্ত আড়াই হাজার কোটি ডলার ঋণ দিয়েছে। এর মধ্যে ২০১৮ সালে বাংলাদেশকে রেকর্ড পরিমাণ ২৫০ কোটি ডলার সহায়তা দেয় সংস্থাটি।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*