তাজা খবর
নাইজেরিয়ার বাণিজ্য মেলায় পুরস্কার লাভ বাংলাদেশের

নাইজেরিয়ার বাণিজ্য মেলায় পুরস্কার লাভ বাংলাদেশের

নাইজেরিয়ায় ‘আবুজা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলা-২০১৯’ এ বাংলাদেশ ‘শ্রেষ্ঠ বিদেশি অংশগ্রহণকারী দেশ’ হিসেবে পুরস্কার লাভ করেছে। শুক্রবার নাইজেরিয়ার বাংলাদেশ হাইকমিশন থেকে পাঠানো এক প্রেস বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

এতে বলা হয়, নাইজেরিয়ায় বাংলাদেশ হাইকমিশন আবুজা আন্তর্জাতিক বাণিজ্য মেলায় সক্রিয়ভাবে অংশগ্রহণ করে। নাইজেরিয়ার ফেডারেল ক্যাপিটেল টেরিটোরি (এফসিটি) বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী হাজিয়া ড. রামাতু তিজানি আলিয়ু এবং শিল্প, বাণিজ্য ও বিনিয়োগ বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী মারিয়ম কাতাগুম মেলার ১২তম বার্ষিক আয়োজনের (২১ সেপ্টেম্বর-২ অক্টোবর) আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেন।

অনুষ্ঠানে নাইজেরিয়ায় বাংলাদেশের হাইকমিশনার মো. শামীম আহসান ছাড়াও অনেক দেশের রাষ্ট্রদূত, হাইকমিশনার, স্থানীয় গণ্যমান্য ব্যক্তি ও বাণিজ্য মেলায় অংশগ্রহণকারী ব্যবসায়ী প্রতিনিধিরা উপস্থিত ছিলেন।

বাংলাদেশ সরকারের ‘অর্থনৈতিক ও বিনিয়োগ কূটনীতি’-কে সর্বোচ্চ প্রাধান্য দেয়ার নীতির ধারাবাহিকতায় বাংলাদেশ হাইকমিশনের স্টলে তার নিজস্ব সংগ্রহের নানাবিধ রফতানি পণ্য স্থান পায়। ২ অক্টোবর সমাপনী দিনে আয়োজক আবুজা চেম্বার অফ কমার্স অ্যান্ড ইন্ডাস্ট্রি বাংলাদেশ স্টলকে ‘শ্রেষ্ঠ বিদেশি অংশগ্রহণকারী দেশ’ হিসেবে ক্রেস্ট ও সার্টিফিকেট দেয়, যা নাইজেরিয়ায় নিযুক্ত বাংলাদেশের হাইকমিশনার আনুষ্ঠানিকভাবে গ্রহণ করেন। এসময় হাইকমিশনার নাইজেরিয়ার ব্যবসায়ী নেতাদের প্রতি বাংলাদেশ হতে পণ্য আমদানি ও বাংলাদেশে বিনিয়োগের আহ্বান জানান।

বাংলাদেশের ঐতিহ্য ও সংস্কৃতির নানাবিধ উপকরণ দিয়ে আকর্ষণীয়ভাবে সাজানো প্রথমবারের মতো অংশগ্রহণকারী বাংলাদেশের বৃহৎ স্টলে তৈরি ওষুধ, সিরামিক দ্রব্য, পাট ও চামড়ার তৈরি বিভিন্ন পণ্য, তৈরি পোশাক ও নিটওয়্যার, চা, পাট পাতার চা, প্লাস্টিক ও মেলামাইন সামগ্রী, বিবিধ মসলা, আচার, শুকনো খাবার, ভোজ্য তেল, চাল, আটা, নকশি কাঁথা, জামদানি, সিল্ক ও মসলিনের শাড়ি, হস্তশিল্প, জুতা, ইত্যাদি স্থান পায়।

দুই মন্ত্রী ছাড়াও নাইজেরিয়ার সেনাপ্রধান বাংলাদেশ স্টল ঘুরে দেখেন। রফতানি পণ্য ছাড়াও বিনিয়োগ, বাণিজ্য, পর্যটন সম্ভাবনা ইত্যাদি বিষয়ে অনেক প্রকাশনা এবং বাংলাদেশের উন্নয়ন অভিযাত্রার ওপরে বিভিন্ন আকর্ষণীয় ব্যানার ও পোস্টার দিয়ে স্টলটিকে সুসজ্জিত করা হয়। একইসঙ্গে, প্রামাণ্য চিত্রের মাধ্যমে বাংলাদেশের ইতিহাস, ঐতিহ্য, উন্নয়ন কর্মকাণ্ড এবং বিনিয়োগের সুবিধাদি তুলে ধরা হয়। ব্যবসায়ী নেতা, গণ্যমান্য ব্যক্তি, সাংবাদিক ও বাংলাদেশ কমিউনিটির সদস্যদের উপস্থিতিতে মেলায় একটি অভ্যর্থনার আয়োজন করা হয়।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*