তাজা খবর
দু’দণ্ড শান্তির খোঁজে প্রশান্তি পার্কে

দু’দণ্ড শান্তির খোঁজে প্রশান্তি পার্কে

সাদা মেঘের ভেলা আর বুনো সবুজ মিলে পাহাড়ের এখন অপরূপ সাজ। প্রকৃতির এই সৌন্দর্যের গল্প শুনে মুগ্ধ হয়ে অনেকেই এ সময় ছোটেন পাহাড়ের দিকে। এর সঙ্গে লেক আর নদী যোগ করতে চাইলে রাঙামাটির কাপ্তাই হতে পারে সেরা জায়গা। চাইলে তাঁবুতে রাতও কাটাতে পারেন, এজন্য সবচেয়ে উপযুক্ত স্থান প্রশান্তি পার্ক।

কাপ্তাই- চট্টগ্রাম সড়কের কোল ঘেঁষে নির্মিত হয়েছে পর্যটন ও বিনোদনকেন্দ্র প্রশান্তি পার্ক। পাহাড়, সবুজ বৃক্ষ ও কর্ণফুলী নদীসহ বেশ কয়েকটি আকর্ষণীয় স্পট নিয়ে ভ্রমণ পিপাসুদের হাতছানি দিয়ে ডাকছে পর্যটনকেন্দ্রটি। ঘোরাঘুরি, আড্ডা, পিকনিক ও প্রিয়জনদের নিয়ে নিরিবিলি পরিবেশে সময় কাটানোর জন্য উপযোগী এটি।

কাপ্তাইয়ের স্বচ্ছ জলে রোমাঞ্চকর কায়াকিংয়ের অভিজ্ঞতা নিয়ে বাকি সময় মাচা, কুঁড়েঘর, দোলনা ও বাগানে ঘোরাঘুরি করে নিমিষেই কাটিয়ে দেয়া যায়। বিনোদনকেন্দ্রটিতে রয়েছে ফ্যামিলি কটেজ, জুমঘর, কাপল ও ব্যাচেলর রুম। রাতে ক্যাম্পিংয়ের ব্যবস্থাও আছে। পার্কটা কর্ণফুলী নদীর পাড়ে অবস্থিত হওয়ায় এর আশপাশের সৌন্দর্য আপনাকে মোহিত করবে।

কাপ্তাই লেক

কাপ্তাই লেক

যারা রাতে তাঁবুতে থাকবেন, তারাই খোঁজ পাবেন আসল সৌন্দর্যের। প্রকৃতি অপার্থিব এক সৌন্দর্যের জাল বুনে সারারাত ধরে। কুয়াশাজড়ানো মায়াময় অনাবিল সৌন্দর্য ছড়িয়ে ছিটিয়ে থাকে চারিদিকে। ভোরে স্বচ্ছ সবুজাভ জলে কুয়াশাচ্ছন্ন পরিবেশ; সেই সঙ্গে আকাশে সোনালী আভা ছড়িয়ে সূর্যমামার কিরণে ঝলমলিয়ে উঠে ধরনী। সবকিছু মিলিয়ে অবর্ননীয় এক সৌন্দর্যের মুখোমুখি হবেন, যার খুব ক্ষীণ অংশই বর্ননা করা যায়। চুপচাপ বসে জীবনের অন্যতম স্বরনীয় সকাল উপভোগ করা সম্ভব প্রশান্তি পার্কেই।

ঢাকা থেকে কাপ্তাইগামী যেকোনো বাসে কাপ্তাই নেমে বালুরচর গেলেই পাবেন প্রশান্তি পার্ক।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*