তাজা খবর
চতুর্থ শিল্পবিপ্লবে তরুণেরা নেতৃত্ব দেবে: ড. সাজ্জাদ

চতুর্থ শিল্পবিপ্লবে তরুণেরা নেতৃত্ব দেবে: ড. সাজ্জাদ

আসন্ন চতুর্থ শিল্প বিপ্লবে বাংলাদেশের তরুণেরা নেতৃত্বে দেবে বলে মন্তব্য করেছেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) সদস্য অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন।

তিনি বলেছেন, চতুর্থ শিল্পবিপ্লব আসন্ন। এ শিল্পবিপ্লব মোকাবেলায় বিশ্বজুড়ে কার্যক্রম শুরু হয়েছে। প্রধানমন্ত্রীর আইসিটি বিষয়ক উপদেষ্টা সজীব ওয়াজেদ জয়ের পরিকল্পনায় সরকার এ বিষয়ে নানা পদক্ষেপ নিয়েছে। এ শিল্পবিপ্লবে বিজ্ঞান ও প্রযুক্তিতে দক্ষ হয়ে আমাদের তরুণেরা দেশে-বিদেশে নেতৃত্ব দেবে।

শনিবার (১৮ জানুয়ারি) বন্দরনগরীর দামপাড়ায় প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির অডিটোরিয়ামে আয়োজিত ‘ন্যাশনাল হ্যাকাথন অন ফ্রন্টিয়ার টেকনোলোজিস: চিটাগং অ্যাকটিভেশন প্রোগ্রাম’ শীর্ষক বিভাগীয় কর্মশালায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে ড. সাজ্জাদ হোসেন এসব কথা বলেন।

সরকারের তথ্য-প্রযুক্তি বিভাগের ইনোভেশন ডিজাইন অ্যান্ড এন্টারপ্রিনিয়রশিপ একাডেমির (আইডিয়া) উদ্যোগে এ কর্মশালা অনুষ্ঠিত হয়েছে। ২৮-২৯ ফেব্রুয়ারি দশটি জাতীয় সমস্যা সমাধানের লক্ষ্যে জাতীয়ভাবে অনুষ্ঠেয় ‘ন্যাশনাল হ্যাকাথন অন ফ্রন্টিয়ার টেকনোলোজিস’ উপলক্ষে এ কর্মশালা হয়েছে।

তথ্যপ্রযুক্তিবিদ ড. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান সোনার বাংলা গড়ে তোলার স্বপ্ন দেখেছিলেন। তার সেই স্বপ্ন বাস্তবায়ন করে চলেছেন তারই কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। তিনি আমাদের ভিশন-২০২১, ২০৩০ ও ২০৪১ দিয়েছেন। শতবর্ষব্যাপী ডেল্টাপ্ল্যান দিয়েছেন।

‘আমাদের লোকসংখ্যার ৮ কোটি তরুণ। এই তরুণদের কাজে লাগিয়ে উন্নত ও সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গড়ে তুলতে হবে। তাদের পেশাগত দিক দিয়ে দক্ষ হগেত হবে। আমাদের বিশ্ববিদ্যালয়গুলো এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা রাখতে পারে।’

চতুর্থ শিল্পবিপ্লবের কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন, আমাদের এখন রোবটিক্স, আর্টিফিশিয়াল ইন্টেলিজেন্স, ডাটা অ্যানালাইসিসসহ বিজ্ঞান ও প্রযুক্তির সর্বশেষ উৎকর্ষ নিয়ে কাজ করতে হবে। আমাদের দৈনন্দিন, সামাজিক ও জাতীয় জীবনে এসব প্রযুক্তির প্রভাব বেড়ে যাবে।

‘কোয়ান্টাম কম্পিউটিং’ এর গবেষক ড. সাজ্জাদ হোসেন বলেন, চতুর্থ শিল্পবিপ্লবে নেতৃত্ব দেওয়ার জন্য বিশ্ববিদ্যালয়-শিক্ষার্থীদের এগিয়ে আসা জরুরি। তথ্য ও প্রযুক্তি বিভাগসহ সরকারের নেওয়া বিভিন্ন পদক্ষেপ সম্পর্কে জানার পাশাপাশি সুযোগ কাজে লাগাতে হবে।

ডিজিটাল বাংলাদেশের অগ্রগতির জন্য স্ট্যার্টআপ, ইনোভেশন কালচার প্রভৃতির তাৎপর্য তুলে ধরেন তিনি।

অনুষ্ঠানে ইন্টারনেটের সঠিক ব্যবহারের জন্য শপথবাক্য পাঠ করান প্রধান অতিথি অধ্যাপক ড. মো. সাজ্জাদ হোসেন।

অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ছিলেন ইনোভেশন ডিজাইন অ্যান্ড এন্টারপ্রিনিয়রশিপ একাডেমির (আইডিয়া) প্রজেক্ট ডিরেক্টর (অতিরিক্ত সচিব) সৈয়দ মুজিবুল হক এবং প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের চেয়ারম্যান টুটন চন্দ্র মল্লিক।

প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির প্রকৌশল ও বিজ্ঞান অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. তৌফিক সাঈদের সভাপতিত্বে কর্মশালায় মূল-প্রবন্ধ উপস্থাপন করেন আইডিয়া’র সিনিয়র কনসালট্যান্ট (সিনিয়র সহকারী সচিব) আর এইচ এম আলাওল কবির।

কর্মশালা সঞ্চালনা করেন প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির ইলেকট্রিক্যাল অ্যান্ড ইলেকট্রনিক ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের সহকারী অধ্যাপক সাইফুদ্দিন মুন্না। এতে চট্টগ্রাম বিভাগের বিভিন্ন পাবলিক ও প্রাইভেট বিশ্ববিদ্যালয়, কলেজ এবং পলিটেকনিক ইনস্টিটিউটের শিক্ষার্থীরা অংশ নেন।

অনুষ্ঠানে প্রিমিয়ার ইউনিভার্সিটির রেজিস্ট্রার খুরশিদুর রহমান, ব্যবসা-শিক্ষা অনুষদের সহকারী ডিন এম মঈনুল হক, গণিত বিভাগের চেয়ারম্যান মোহাম্মদ ইফতেখার মনির প্রমুখ প্রমুখ উপস্থিত ছিলেন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*