তাজা খবর
কিডনি ও চোখ সুরক্ষায় আলু

কিডনি ও চোখ সুরক্ষায় আলু

রক্তচাপ নিয়ন্ত্রণেও কার্যকর ভূমিকা পালন করে আলু। এটি রক্তে সুগারের মাত্রা না বাড়িয়ে বরং তা কমিয়ে রাখে।উচ্চ আঁশজাতীয় খাদ্য উপাদানে সমৃদ্ধ হওয়ার কারণে এটি কোষ্ঠকাঠিন্যও দূর করে। জেনে নিন মিষ্টি আলুর বিভিন্ন উপকারিতা সম্পর্কে-

> মিষ্টি আলুতে থাকা সুগার রক্তে ধীরগতিতে প্রবেশ করে দেহে শক্তি সঞ্চার করে। এ কারণে ক্রীড়াবিদ ও খেলোয়াড়দেরকে এবং যারা রক্তের নিম্নচাপে আক্রান্ত তাদেরকে মিষ্টি আলু খাওয়ার পরামর্শ দেওয়া হয়।

> মিষ্টি আলু খাওয়ার আগে রান্না করে নেয়া ভালো। যাতে এতে থাকা পুষ্টি উপাদানগুলো সহজেই শুষে নেয়া যায়।

> বিটা ক্যারোটিন, জিংক, ম্যাগনেসিয়াম এবং ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স এর উপস্থিতির কারণে মিষ্টি আলু আর্থ্রাইটিস মোকাবেলায় কার্যকরী ভূমিকা রাখে।

> মিষ্টি আলু সিদ্ধ করে ও চটকিয়ে খেলে বিটা ক্যারোটিন (ভিটামিন- এ) সহজেই হজম হয়। এছাড়া সিদ্ধ করে খেলে রক্তে সুগারও কম মিশে।

> ভিটামিন বি-কমপ্লেক্স, ভিটামিন সি, বিটা ক্যারোটিন, পটাশিয়াম এবং ক্যালসিয়াম পাকস্থলীর আলসার নিরাময়ে সাহায্য করে।

> মিষ্টি আলু খেলে মানসিক অবসাদ কমে, ত্বককে উজ্বল ও হাড়কে শক্ত করে এবং শরীরের শক্তি যোগায়।

> মিষ্টি আলুতে থাকা ভিটামিন ‘এ’ চোখের জন্য খুবই উপকারী। এছাড়াও মিষ্টি আলুতে রয়েছে অ্যান্থোসায়ানিন, যা চোখের রেটিনার রঞ্জক কোষের বৃদ্ধি ও রক্ষায় কার্যকরী ভূমিকা পালন করে।

> মিষ্টি আলুতে যে ক্যারোটিন রয়েছে তা গুরুত্বপূর্ণ অ্যান্টি-অক্সিডেন্ট এবং ক্যান্সাররোধী উপাদানসমৃদ্ধ। পরিপাকনালীর মধ্য দিয়ে যাওয়ার সময় মিষ্টি আলু ক্যান্সার সৃষ্টিকারী বিপজ্জনক উপাদানগুলো শুষে নেয়।

> ভিটামিন বি ৬ সমৃদ্ধ মিষ্টি আলু হৃদরোগের ঝুঁকি কমায়। মিষ্টি আলু ম্যাগনেশিয়াম সমৃদ্ধ। যা ধমনী, রক্ত, হাড়, মাংসপেশি, স্নায়ুর এবং কিডনির সুরক্ষা ও তৎপরতায় সহায়ক।

> মিষ্টি আলু ৩ থেকে ৪ গ্রাম ঘিয়ে ভেজে খেলে এর পুষ্টি উপাদানগুলো আরো সক্রিয় হয় এবং সহজেই হজমও হয়।

সূত্র : টাইমস অব ইন্ডিয়া

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*