তাজা খবর
সকালের নাস্তায় কমবে পেটের মেদ!

সকালের নাস্তায় কমবে পেটের মেদ!

সকালের নাস্তায় যারা ডিম খেয়ে থাকেন তাদের জন্য এবার রয়েছে সুখবর। গবেষকদের মতে ডিমে রয়েছে প্রচুর পরিমাণে ডি, যা পেটের মেদ গলাতে ভালই সাহায্য করে। বিশেষ করে ডিমের সাদা অংশটি পেটের মেদ কমাতে বেশ সহায়ক। এ অংশটি বেশ অনেকটা সময় ধরে পেটে থাকার ফলে ক্ষুধাও কম লাগে। আর ক্ষুধা কম লাগলে খাবারও কম খেতে হয়, ফলে ওজন কমানোটা সহজ হয়।

গবেষকরা বলছেন, রোজ সকালে নাস্তায় খালি পেটে একটি করে ডিম খেলে সারাদিনের ক্ষুধা কমে যায় ফলে ঘন ঘন খাদ্য গ্রহণের প্রয়োজন হয় না। যার ফলে পেটে বাড়তি মেদ জমার সুযোগ থাকেনা। তাছাড়াও শরীরের শক্তি বজার রাখতেও এটি বেশ কার্যকরী।

ব্রিটিশ মেডিকেল জার্নালের প্রকাশিত এক সংবাদের ভিত্তিতে জানা যায়, সকাল ৮টার আগে একটি ডিম খেয়ে ওজন কমানো সম্ভব। তবে যেমন তেমনভাবে খেলে হবেনা। আধ চামচ অলিভ অয়েল দিয়ে ডিম ভেজে খেতে পরামর্শ দিয়েছেন গবেষকরা। এতে প্রচুর পরিমাণে ভিটামিন ডি, প্রোটিন ও বায়োটিন রয়েছে বলে জানান তারা।

ব্রিটিশ একটি গবেষণায় প্রমাণিত হয়েছে যে, সকালে হাই প্রোটিন খেলে অ্যাবডোমেনাল টিস্যু অর্থাৎ পেটের টিস্যুকমে যায়। এতে পেটের মেদ কমে৷ তবে রিপোর্ট বলছে ওজন বা শরীরের মেদ অনেক কারণেই বাড়তে পারে। এরমধ্যে হরমোনাল জটিলতাও অন্যতম। সেক্ষেত্রে মেদ কমাতে চিকিৎসকের পরামর্শই প্রথম প্রয়োজন।

ডিমের কুসুম খাবেন কী খাবেন না এ নিয়ে দোটানায় থাকেন অনেকে। জেনে রাখুন, দুটো ডিমের কুসুম অনায়াসে খেতে পারবেন আপনি। এর বেশি খেলে কুসুম এড়ানোই শ্রেয়। আর যাদের কোলেস্টেরলের সমস্যা রয়েছে তারা একটু চিকিৎসকের পরামর্শ নিন।

যারা হার্টের রোগী বা কোলেস্টোরেল সংক্রান্ত জটিলতায় ভুগছেন, তাদের জন্য ডিম একরকম নিষিদ্ধই বলা চলে। সেক্ষেত্রে প্রথমেই দরকার চিকিৎসক বা পুষ্টিবিদের পরামর্শ।

আপনি যদি সুস্থ থাকেন আর ওজন কমাতে আগ্রহী হন তবে সকালের নাস্তায় ডিম আপনার জন্য আদর্শ খাদ্য হবে।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*