তাজা খবর
প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে: আমিনুল ইসলাম

প্রধানমন্ত্রীর নেতৃত্বে বাংলাদেশ এগিয়ে যাচ্ছে: আমিনুল ইসলাম

জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর কন্যা প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নেতৃত্বে বাংলাদেশ সামনের দিকে এগিয়ে যাচ্ছে মন্তব্য করে আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম বলেছেন এগিয়ে যাওয়া শুধু রাজনীতি, অর্থনীতি নিয়ে নয়। আমাদের সাংস্কৃতিক জগতকে যত ঋদ্ধ, সমৃদ্ধ করতে পারবো আমাদের দেশ এগিয়ে যাবে। মনে রাখতে হবে সাংস্কৃতিক বিপ্লব ছাড়া, সাংস্কৃতিক মননের মধ্যে বিশাল পরিবর্তন ছাড়া একটি জাতিকে সামনে এগিয়ে নেওয়া যায় না।

নগরের জামালখান ডা. এমএ হাশেম চত্বরে প্রথম সম্মিলিত বসন্ত উৎসবের উদ্বোধন করা হয়েছে। শুক্রবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) বেলুন উড়িয়ে উৎসবের উদ্বোধন করেন বরেণ্য সমাজবিজ্ঞানী ও প্রিমিয়ার বিশ্ববিদ্যালয়ের উপাচার্য ড. অনুপম সেন।

উদ্বোধনকালে ড. অনুপম সেন বলেছেন, পঞ্চাশ-ষাটের দশকে যখন আমরা ঔপনিবেশিক শাসনে পর্যদস্ত সেই সময় সংস্কৃতিকর্মীরা এগিয়ে এসেছিলো। রমনার মাঠসহ ঢাকায় অনেক উৎসব দেখেছিলাম মানুষকে জাগানোর জন্য।

তিনি বলেন, বাংলাদেশ মুখ্যত গ্রামীণ সমাজ। এখানে বহুকাল ধরে বিভিন্ন ঋতুকে বরণ করে নিই। বিশ্বে বাংলাদেশের মতো এতো সুজলা সুফলা শস্য শ্যামলা সুন্দর দেশ আমি আর দেখিনি। বিশ্বের অনেক দেশ ভ্রমণ করেছি। যেখানেই থেকেছি এ দেশের জন্য বেদনা অনুভব করেছি। এদেশে মানুষ পাটি বিছিয়ে ঘুমোতে পারে। বিশ্বের অনেক দেশে এটি সম্ভব হয় না আবহাওয়ার কারণে। এদেশে ঋতুগুলো ভারি চমৎকার। বলা হয়ে থাকে, বারো মাসে তেরো পার্বণ। দিন যাপনের গ্লানি থেকে কয়েকটি দিন বেরিয়ে আসার চেষ্টা করি নিজেকে পরিপূর্ণতা দেওয়ার জন্য।

স্বাগত বক্তব্য দেন উৎসব পরিষদের চেয়ারম্যান, আওয়ামী লীগের কেন্দ্রীয় উপ প্রচার ও প্রকাশনা সম্পাদক আমিনুল ইসলাম।

শুভেচ্ছা বক্তব্য দেন দক্ষিণ জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক মফিজুর রহমান। এরপর রবীন্দ্র সংগীত পরিবেশন করেন রক্তকরবীর শিল্পীরা।

শিল্পী দোলন কানুনগোর মোহন বীণার সুরে শুরু হয় উৎসব। সকাল ১০টা ২৫ মিনিটে মোহন বীণার সুর ছড়িয়ে আনুষ্ঠানিকতা শুরু করেন তিনি। ঢৌড়ি রাগে ১৫ মিনিটের অপূর্ব সুর মূর্ছনায় তবলায় ছিলেন রতন কুমার দত্ত।

এ উৎসবে খ্যাতিমান শিল্পী ফকির শাহাবুদ্দিন একক সংগীত ও অভিনয় শিল্পী তারিন একক নৃত্য পরিবেশন করার কথা রয়েছে।

উপস্থাপনায় ছিলেন দিলরুবা খান, দেবাশীষ রুদ্র প্রমুখ।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*