তাজা খবর
মা দিবসে সন্তানের ভূমিকায় বৃদ্ধার পাশে সীতাকুণ্ড সার্কেলের এএসপি শম্পা

মা দিবসে সন্তানের ভূমিকায় বৃদ্ধার পাশে সীতাকুণ্ড সার্কেলের এএসপি শম্পা

লাঠিতে ভর দিয়ে কুঁজো হয়ে সড়কের একপাশ দিয়ে হেঁটে যাচ্ছেন এক বৃদ্ধা। বয়স প্রায় ৭০ বছর। ওই পথে ধরে গাড়িতে করে যাচ্ছিলেন আরেক নারী। বৃদ্ধাকে দেখে গাড়ি থামিয়ে তার কাছে গেলেন। জানতে চাইলেন তার ব্যাপারে। এরপর পরম মমতায় কাছে টেনে নিয়ে পূরণ করলেন চাহিদা।

তিনি শম্পা রানী সাহা, সীতাকুণ্ড সার্কেলের এএসপি। আন্তর্জাতিক মা দিবসে রোববার (১০ মে) দুপুরে সীতাকুণ্ড উপজেলার ঢাকা-চট্টগ্রাম মহাসড়কের পার্শ্ববর্তী নুনাছরা এলাকায় এ ঘটনা ঘটে।

পুলিশের পোশাক পরা একজন নারীকে কাছে পেয়ে আবেগাপ্লুত বৃদ্ধা বলেন, ‘আমার ওষুধ নেই, খাবার নেই’। এ সময় হাতের প্রেসক্রিপশনটি দেখান তিনি।

এরপর এএসপি শম্পা রানী সাহা সেটি নিয়ে যান কাছের ফার্মেসিতে। একমাসের প্রয়োজনীয় সব ওষুধ ও নানা রকম খাবার কিনে দিলেন তাকে।

বৃদ্ধা তাকে জড়িয়ে ধরে বলেন, ‘চোখে ঠিকমতো দেখি না। চশমা লাগবে’। এ কথা শুনে এএসপি শম্পা বলেন, চশমা তো ডাক্তার দেখিয়ে কিনে দিতে হবে। পরবর্তীতে সে ব্যবস্থাও করার আশ্বাস দিলেন তিনি। অজান্তে পেছন থেকে এসব দৃশ্য ক্যামেরাবন্দি করেন সেখানে উপস্থিত এক যুবক।

একই সময়ে অসহায় আরো বেশ কয়েকজনের হাতে খাবার তুলে দেন এএসপি শম্পা রানী সাহা।

তিনি বলেন, ‘সবাই মা দিবস পালন করেন, কিন্তু প্রকৃতপক্ষে অনেক মা তার সন্তানকে চোখেও দেখতে পান না। নইলে ৭০ বছর বয়সী একজন বৃদ্ধা ওষুধ ও খাবারের জন্য পথে পথে ঘুরবে কেন? তিনি তো ঘর থেকেই বের হবার কথা না’।

তিনি বলেন, ‘বৃদ্ধা হাঁটতে পারছিলেন না। ভালোভাবে কথাও বলতে পারেন না। তখন যা করা দরকার ছিলো বলে মনে করেছি শুধু তাই করেছি। তার একটা চশমা কেনার বায়না ছিল। ডাক্তার দেখানো ছাড়া তো সেটি দেওয়া সম্ভব না। চেষ্টা করবো আবারো এই মায়ের সঙ্গে দেখা করে ছোট কাজটুকু করে দিতে’।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*