তাজা খবর
চট্টগ্রাম বন্দরে আটক পণ্যের নিলাম ৩০ জুন

চট্টগ্রাম বন্দরে আটক পণ্যের নিলাম ৩০ জুন

চট্টগ্রাম বন্দরে প্রতিমাসে একবার দীর্ঘদিন পড়ে থাকা আমদানি পণ্য নিলামে তোলে কাস্টম হাউস কর্তৃপক্ষ। করোনাকালে এক মাসে নিলাম হয়নি। এবার (৩০ জুন) অনুষ্ঠিত হচ্ছে বড় নিলাম।

যাতে পৌনে দুইশ লটে সাড়ে তিনশ’ কনটেইনারে থাকা পণ্য নিলামে তোলা হচ্ছে। এর মধ্যে থাকছে বিলাসবহুল গাড়ি, আপেল, হিমায়িত মাংস, গার্মেন্টস এক্সেসরিজ, বিভিন্ন ধরনের ফেব্রিকস, কেমিক্যাল, ইলেকট্রনিকস পণ্য, পেপার ও পেপারসামগ্রী, হার্ডওয়্যার, টেক্সটাইল মেশিনারিজ, সিরামিক আইটেম ইত্যাদি।

সূত্র জানায়, নিলামে উঠছে ৬ লাখ কেজির বেশি আপেল, হিমায়িত ১৭৪ টন, মাছ ৯ টন, মুরগি বা মাছের খাবার ৭২৯ টন, পেঁয়াজ ১৫০ টন, সোডিয়াম সালফেট ৫৪০ টন, ক্যালশিয়াম কার্বনেট ১৯ কনটেইনার, ৮ কনটেইনার আর্ট পেপার, ক্যাপিটাল মেশিনারি ৬৮৯ টন এবং বিভিন্ন মডেলের চারটি গাড়ি।

নির্ধারিত সময়ে আমদানিকারক চালান খালাস না করা, মিথ্যা ঘোষণায় শুল্কফাঁকির চেষ্টার অভিযোগে আটক পণ্য নিলামে তোলা হয়ে থাকে।

বুধবার শুরু হয়েছে বন্দরের ভেতরে রাখা নিলাম লটের পণ্য প্রদর্শনী। শুক্রবার (২৬ জুন) শেষ হবে বিডারদের (নিলামে অংশগ্রহণকারী) পণ্য দেখার সুযোগ।

আগ্রহী ব্যক্তি ও প্রতিষ্ঠান ২৯ জুন পর্যন্ত নিলামে অংশ নেওয়ার আবেদন ফরম সংগ্রহ করে পরদিন দুপুরের মধ্যে জমা দিতে পারবেন। বেলা আড়াইটায় দরপত্র বাক্স খোলা হবে।

কেএম করপোরেশনের সহযোগিতায় কাস্টম হাউসের এ নিলামে জাতীয় পরিচয়পত্রের কপি ও কিনতে ইচ্ছুক পণ্যের বিপরীতে প্রদত্ত দরের ১০ শতাংশ পে অর্ডার দিয়ে যে কেউ অংশ নিতে পারেন। প্রাতিষ্ঠানিকভাবে অংশ নিতে হলে ট্রেড লাইসেন্স, টিআইএন, বিআইএন ইত্যাদি থাকতে হয়।

কাস্টম হাউসের নিলাম শাখার ডেপুটি কমিশনার ফরিদ আল মামুন বলেন, এবার ১৬৪ লট চূড়ান্ত করা হয়েছে নিলামের জন্য। কয়েকদিনের মধ্যে আরও কিছু লট যুক্ত হবে। সব মিলে ১৭০-১৭৫ লটের নিলাম হবে এবার।

নিলামে অংশগ্রহণের জন্য চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসের রাজস্ব কর্মকর্তা (প্রশাসন), জেলা প্রশাসকের দফতর এবং যুগ্ম কমিশনার (সদর), শুল্ক আবগারি ও ভ্যাট কমিশনারেটের (ঢাকা দক্ষিণ) কার্যালয়ে নির্ধারিত দরপত্র জমা দেওয়ার বাক্স থাকবে। চট্টগ্রাম কাস্টমস হাউসের নিলাম শাখা এবং ঢাকা ভ্যাট কমিশনারেট কার্যালয়ে একযোগে টেন্ডার বাক্স খোলা হবে।

বন্দর সূত্রে জানা গেছে, গত ২৫ জুন সকাল ৮টা পর্যন্ত বন্দরে নিলামযোগ্য কনটেইনার রয়েছে ৮ হাজার ৪১২ টিইইউ’স। বন্দরের বিভিন্ন ইয়ার্ড ও টার্মিনালে এ সময় কনটেইনার ছিলো ৩৪ হাজার ৭১ টিইইউ’স।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

*